Loading...
You are here:  Home  >  বিনোদন  >  Current Article

এবার ঋতুপর্ণার ন্যাকামি সহ্য করুন

By   /  October 21, 2016  /  No Comments

নন্দ ঘোষের কড়চা
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত বলতে প্রথমেই আপনাদের কী মনে পড়ে ? শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ,বস্তির মেয়ে রাধা ইত্যাদি একগাদা বস্তাপচা সিনেমা। বছরের পর বছর তিনি এইসব সিনেমা করেছেন। এবং উচ্ছন্নে যাওয়া বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে এক নম্বর নায়িকার সম্মান পেয়েছেন।

আর্ট ফিল্মের কথা বাদ দিন। সেখানে ভাল গল্প, ভাল চিত্রনাট্য, ভাল পরিচালক। কিন্তু একজন অভিনেতা-অভিনেত্রীর আসল কেরামতি বোঝা যায় বাজার চলতচি সিনেমাতে। সেই ছবিতে ঋতুপর্ণাকে ব্যাখ্যা করার জন্য তিনটি শব্দই যথেষ্ট। ন্যাকা, অসহ্য এবং বিরক্তিকর। যেমন চড়া সাজসজ্জা, তেমনি উৎকট অঙ্গভঙ্গি, তেমনি চিৎকার করে সংলাপ। সিনেমা না গাজন, বোঝা দায়। আজ পর্যন্ত ঋতুপর্ণার এমন কোনও স্টিল পিকচার দেখলাম না, যেখানে তিনি ক্যামেরার দিকে সোজা তাকিয়ে আছেন। হয় চোখ ঘুরে গেছে, নয় ঘাড় হেলে পড়েছে, নয় কোমর হেলে পড়েছে। পথের পাঁচালিতে হেলেঞ্চা নামে একটি লতার কথা পড়েছি। সেটা বোধ হয় এঁর কথা ভেবেই লেখা। অথবা, হেলে সাপও বলতে পারেন।

rituparna2

ঋতুপর্ণা নায়িকার আসন থেকে বিদায় নেওয়ার পর ভেবেছিলাম, শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদের দিনগুলি চিরতরে বিদায় নিল। কিন্তু হোম মিনিস্টার বৌমা নামে একটি অনুষ্ঠান নিয়ে তিনি ছোট পর্দায় এসেছেন। এবং ফিরিয়ে এনেছেন শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদের সেই অসহ্য দিনগুলিকে। সেই উৎকট সাজসজ্জা, সেই হেলে হেলে দাঁড়ানো, সেই ই-ই-ই করে চিৎকার। প্রতিযোগীরা যত না চেঁচায়, তার থেকে সঞ্চালিকা বেশি চ্যাঁচায়, বেশি লাফায়। আর প্রতিযোগিতার কী ছিরি! গর্তে বল ফেলা, দৌড়ে গিয়ে বোতাম টেপা । আচ্ছা ঋতুপর্ণা দি, হোম মিনিস্টার হওয়ার সঙ্গে বোতাম টেপার কী সম্পর্ক? আপনি যে বাড়িতে বৌমা, সেই বাড়িতে বুঝি হোম মিনিস্টাররা এভাবে বোতাম টেপে আর বল ছোঁড়ে ?
আর বৌমা-রা আপনার কথা শুনবেই বা কেন ? আপনি কবে শ্বশুরবাড়ি করেছে ? কখনও শাশুড়ির পা টিপেছেন ? কখনও রান্না ঘরে বাড়ির লোকের বাসন মেজেছেন ? কখনও শ্বশুরবাড়িতে মশারি খাটিয়েছেন ? শ্বশুরবাড়িতে একজন গিন্নিকে যা যা করতে হয়, তার কোনটা করেছেন ? আপনি কিনা জ্ঞান দেবেন ? বাঙালির যৌথ পরিবার যেটুকু আছে, আপনার জ্ঞান শুনলে সেটাও আর থাকবে না।

nanda ghosh logo

বাংলায় এইরকম শো আরেকটা হয়। দিদি নম্বর ওয়ান। তার সঞ্চালিকাও ঋতুপর্ণার সমসাময়িক। রচনা ব্যানার্জি। তাঁর অভিনয়ও ঋতুপর্ণার সমমানের। আর সেই অনুষ্ঠানেও বেলুন ফাটানো, জিলিপি খাওয়া ইত্যাদি প্রতিযোগিতা হয়। রচনার অনুষ্ঠানে তবু শুধু মেয়েরা আসে। ঋতুপর্ণার অনুষ্ঠানে শুনছি গোটা গুষ্টি এসে হাজির হবে। লোকে সন্ধেবেলায় রান্না করা, ছেলে পড়ানো সব ভুলে ঋতুপর্ণার ন্যাকামিকে হাঁ করে দেখবে। বোঝাই যাচ্ছে, সময় যতই এগিয়ে যাক, দর্শকের রুচি বদলায়নি। তাঁদের পছন্দ এখনও শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ-এর যুগেই পড়ে আছে। স্মার্ট, চনমনে সঞ্চালিকাদের ছেড়ে তাঁরা সেইসব নায়িকাদেরই দেখতে চান, যাঁরা প্রতিমুহূর্তে হেলে পড়েন, আর ই-ই-ই করে চিৎকার করেন।
একটা কথা চালু আছে। একজন নায়ক বা নায়িকার পড়ন্ত সময় কখন বোঝা যায় ? যখন সে সিরিয়াল বা রিয়েলিটি শো করে। যখন সেটাও জোটে না, তখন যাত্রা করে। ঋতুপর্ণাকে দেখেও বোঝা যায়, তিনি হতাশ হয়ে পড়েছেন। হতাশ হলে সেই হতাশা নিজের কাছেই রাখতে হয়। এভাবে প্রকাশ করতে নেই।

(আপনিও হয়ে উঠতে পারেন নন্দ ঘোষ। বেছে নিতে পারেন আপনার প্রিয় চরিত্রকে। মনের সুখে পিন্ডি চটকান। পাঠিয়ে দিন bengaltimes.in@gmail এই ঠিকানায়। )

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × two =

You might also like...

facebook fake id2

সোশাল নয়, এ যেন অ্যান্টি সোশাল সাইট

Read More →
error: Content is protected !!
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk