Loading...
You are here:  Home  >  ওপেন ফোরাম  >  Current Article

দিবস-মোহ

By   /  March 9, 2017  /  No Comments

সঞ্জয় মন্ডল

‘বারো মাসে তেরো পার্বণ’ ছাড়িয়ে এখন বছরের প্রতিটি দিনই হয় কোনও দিবস কিংবা উৎসব। গতকাল শিশুদিবস ছিল, আজ ক্যান্সার দিবস কিংবা আগামীকাল হয়তো উপভোক্তা দিবস উদযাপন করা হবে। অথচ নারীদিবসের দিনেই দেশের কোনও এক প্রান্তে একজন স্বামী (?) তার স্ত্রীকে দাঁড়িপাল্লায় তোলেন ঋণ পরিশোধ করার জন্য। কিংবা অধিকারের দাবীতে পথে নেমে আন্দোলন করতে হয় নারীদের। অন্যদিকে পরিবেশ দিবসের দিন নামকরা বহুজাতিক সংস্থার “বায়ুশোধনকারী” যন্ত্রের বিজ্ঞাপন ঝলমল করে ওঠে স্বল্পবাস পরিহিতা নায়িকারা থাকেন পাতার পর পাতা জুড়ে।

আসলে আমাদের এই ‘ভোগবাদী’ সমাজে এইসব দিবস পালনের সঙ্গে সমাজের সার্বিক কল্যাণ জড়িয়ে থাকে নামমাত্র। বিনা খরচে কেউ ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসা করার অঙ্গীকারও করে না। একটি ‘বিশেষ’ দিবস, সে ‘শিশু দিবস’ কিংবা ‘ক্যান্সার দিবস’ হোক না কেন, সেই দিনটি আসলে ব্যবহৃত হয় আরও বেশি বেশি পণ্য বিক্রি করার একটা ‘বিশেষ’ সুযোগ হিসাবে। সর্বক্ষন, সর্বত্র শুধু বিজ্ঞাপন আর বিজ্ঞাপন। এক দল বলে ‘কিনে নিন, কিনে নিন’ তো অন্য দল বলে ‘বেচে দিন, বেচে দিন’। আচ্ছা, আমরা কি কলের পুতুল না লাঙলে জুতে দেওয়া বলদ!

একটি “দিবস পালন” আসলে সমাজ কিংবা মানুষের প্রতি পূর্বকৃত অঙ্গীকারকে মনে করিয়ে দেওয়া। অথচ বাস্তবে এগুলো পর্যবসিত হয় জনগণের মনযোগ বিক্ষিপ্ত করার কৌশলি প্রচেষ্টা হিসাবে। ব্যক্তি, সমাজ থেকে শুরু করে আমাদের চিন্তা, চেতনা, মনন ও ভাবনাকে সবসময় কিছু-না-কিছু একটা প্রলোভনের সঙ্গে “খুড়োর কলের” মতো জুতে দেওয়া চাই।

womens day2

ঘুম থেকে উঠলেই একটি ‘দিবস’। আমি-আপনি সারাদিন ধরে সেই দিবস পালনে মত্ত। এটাই পুঁজিবাদী ‘বাজারি’ ব্যবস্থা আর সেই ব্যবস্থা ময়াল সাপের মতো আষ্টেপৃষ্ঠে পেঁচিয়ে গিলে ফেলতে চায় দেশ, সমাজ, সংসার, সম্পর্ক। সব কিছু। জাতি-ধর্ম-বয়স নির্বিশেষে আবালবৃদ্ধবনিতা–‌সহ গোটা সমাজটাই যেন একজন মাতাল আর তার পাশে মদের খালি বোতলের মতো দিন-রাত গড়াগড়ি খাক। আমাদের মন-মস্তিষ্ক, চিন্তা, চেতনা, অনুভূতি, চাওয়া-পাওয়া সমস্ত কিছু আবর্তিত হোক এবং নিমজ্জিত থাকুক কোনও না কোনও পণ্যের ভোগবিলাসিতায় অথবা ভোগ্যপণ্যের আকাঙ্ক্ষায়।

তাই মনে হয় না এবার নারী-পুরুষ, জাতি-ধর্ম নির্বিশেষ সবাইকে এই ‘দিবস’ পালনের মোহ থেকে বেরিয়ে আসা দরকার। পিতা-মাতা দিবস পালন করার পরেও বৃদ্ধ বাবা-মাকে ছেলের অত্যাচারে জর্জরিত হয়ে আদালতের দ্বারস্থ হতে হয়। ঘটা করে শিশুদিবস পালন করার পরে শিশুশ্রমিকের বানানো চা না খেলে চায়ের স্বাদ পাওয়া যায় না। আবার নারীদিবসের বক্তৃতা মঞ্চ থেকে মাইকের শব্দ পিঠে শিশু সন্তানকে বেঁধে ইঁটভাটায় ইঁট বইতে থাকা নারীর কানে পৌঁছয় না। কোনও বিশেষ দিবস যেমন আমাদের মহৎ করে তোলে না, তেমনি পতনোন্মুখ মানসিকতা কিংবা চারিত্রিক ত্রুটিকেও পাল্টাতে পারে না। পারবেও না। যতক্ষণ না কোনও গঠনমূলক ও উন্নততর সমাজব্যবস্থায় আমাদের উত্তরণ হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − 5 =

You might also like...

meghe dhaka tara

সুপ্রিয়ার কণ্ঠে অমরত্ব পাওয়া সেই সংলাপ

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk