Loading...
You are here:  Home  >  শিরোনাম  >  Current Article

নরেন মুদির স্বপ্ন

By   /  February 4, 2015  /  No Comments

নরেন মুদি আমাদের দেশের এক সাধারণ নাগরিক। আগে চা বিক্রি করতেন, এখন রাস্তা ঝাঁট দেন।  একরাতে, সারাদিনের খাটুনির পর তাঁর চোখে যখন সবে ঘুম এসেছে, তাঁর ঘরে প্রবেশ করল এক ছায়ামূর্তি। তারপর যা হল তাই নিয়ে আমাদের একাঙ্ক নাটক,

 

নরেন মুদির স্বপ্ন

 

রবি কর

 

স্থানঃ ভারতবর্ষ

কালঃ ২০১৪-১৫ সাল, মধ্যরাত

চরিত্রঃ নরেন মুদি,  ছায়ামূর্তি ওরফে গণপতি ওরফে সর্দার

 

ছায়ামূর্তিঃ  নরেন! এই নরেন! আরে এই ব্যাটা নরেন মুদি!

নরেনঃ কে রে? কে? আমাকে নাম ধরে ডাকছিস এতবড় সাহস!

ছায়ামূর্তিঃ নাম ধরে ডাকব না তো কি লেজ ধরে ডাকব? নাম তো ডাকার জন্যই।

নরেনঃ নমু বলতে পারিস না? সবাই যেমন বলে?

ছায়ামূর্তিঃ সবাই তো তোকে ফেকুও বলে।

নরেনঃ অ্যাই খবরদার। মুখ সামলে কথা বলবি। জানিস আমি কে? জানিস আমার ছাতি ৫৬ ইঞ্চি!

ছায়ামূর্তিঃ তাহলে, আমার ছাতি দ্যাখ।

(অন্ধকার থেকে আলোর দিকে কয়েক পা এগিয়ে আসে ছায়ামূর্তি।)

নরেনঃ হ্যা হ্যা ওই তো থলথলে ছাতি। ছেলে না মেয়ে বোঝা যায় না। ব্যাটা ভুঁড়িদাস, মোটুরাম।

ছায়ামূর্তিঃ শুধু ছাতি দেখলে হবে না। সঙ্গে মাথাটাও থাকতে হবে। আমার মাথাটা ভাল করে দ্যাখ।

(আলোর দিকে আরও কয়েক পা এগিয়ে আসে।)

নরেনঃ ওরে বাবা কত বড় মাথা রে! যেন হাতি! হাতি-হাতি-হা-হা-হায় হায় আমি কাকে দেখছি? গজানন, গণেশ,  গণপতি । ওঁ নমঃ নমঃ । প্রভু আপনি কি আমাকে বর দিতে এসেছেন? কী বর দেবেন প্রভু?

গণপতিঃ বর বউ কিচ্ছু দিতে আসিনি। তোর সঙ্গে দুটো মনের কথা বলতে এলাম। তুই নাকি প্রাচীন ভারতের গৌরব তুলে ধরছিস ?

নরেনঃ তুলে ধরছি মানে! মাথায় তুলে ধরছি। সবাইকে বলেছি আপনার যে হাতির মাথা এটা প্লাস্টিক সার্জারির উদাহরণ।

গণপতিঃ এই সব কথা বলেছিস ? তা হ্যাঁ রে, সার্জারিটা কে করল? অশ্বিনীকুমার না ধন্বন্তরি?

নরেনঃ অশ্বিনীকুমার? ধন্বন্তরি? হ্যাঁ ওঁরাই যখন দেবতাদের ডাক্তার তখন ওঁদেরই করা উচিত ছিল। কিন্তু এক্ষেত্রে করেছিলেন শিব। আপনার বাবা।

গণপতিঃ কী করে করল? আমার বাবার তো ছুরিকাঁচি ছিল না?

নরেনঃ আরে দেবতাদের ছুরিকাঁচি লাগে নাকি? ত্রিশূলের ডগা দিয়েই প্লাস্টিক সার্জারি করে দিলেন। ত্রিশূলের ক্ষমতা কম নাকি!

modi and ganesh

ছবিঃ অনির্বাণ ঠাকুর

গণপতিঃ সত্যি তুই কত খবর রাখিস। (স্বগতোক্তি) শুধু শ্যামজী কৃষ্ণ বর্মা আর শ্যামাপ্রসাদের তফাৎ বুঝিস না।

 

নরেনঃ কিছু বললেন প্রভু?

গণপতিঃ না না কিছু বলিনি। আচ্ছা একটা কথা বলতো, শিবঠাকুর, আমার মাথা কেটে হাতির মাথা জুড়লেন কেন? প্লাস্টিক সার্জারি করে আগের মাথাটাই তো জুড়ে দিতে পারতেন?

নরেনঃ (স্বগতোক্তি) তাই তো, এটা তো ভেবে দেখিনি।  (প্রকাশ্যে) কেন পরীক্ষা নিচ্ছেন প্রভু? আপনাদের লীলা কি আমি বুঝতে পারি? হয়তো আগের মাথাটা হারিয়ে গেছিল? নতুন করে মাপ মতো মাথা পাওয়া যায়নি।

গণপতিঃ তা নতুন একটা মাথা বানিয়ে নিলেই তো হত। পুরাণে কতজনের তো এক্সট্রা মাথা ছিল। ব্রহ্মার চারটে মাথা, আমার ভাই কার্তিকের ছটা মাথা। আমারও অমন একটা মাথা গজালেই পারত। তাহলে এমন কুচ্ছিত, দশমণি ওজনের হাতির মাথা বয়ে বেড়াতে হত না।

নরেনঃ সত্যি প্রভু আপনার দুঃখ দেখলে চোখে জল আসে। আপনার মা কত কষ্ট করে আপনার জন্ম দিলেন। মা দুর্গা নিজের গাত্রমল ঘষে ঘষে তুলে তাই দিয়ে আপনাকে গড়লেন,… আরে তাই তো , আগে খেয়াল করিনি… প্রভু এটা তো ক্লোনিঙের উদাহরণ। প্রাচীন ভারতে ক্লোনিং ছিল। ইস মিস হয়ে গেলো, ক্লু‘টা আগে পেলে সায়েন্স কংগ্রেসে ওটাই হেডলাইন হয়ে যেত।

গণপতিঃ অ্যাঁ! তোর বুদ্ধি দেখছি লালমোহন গাঙ্গুলির মতো। সবই উটের পাকস্থলী।

নরেনঃ ব্যঙ্গ করবেন না প্রভু। আমাদের ঐতিহাসিক বলেছেন, রামায়ন- মহাভারত-পুরাণ এগুলো আসলে ইতিহাস। গান্ধারীর শত পুত্র আসলে স্টেম সেল প্রযুক্তি।  স্টেম সেল থাকলে ক্লোনিং থাকবে না কেন?

গণপতিঃ যেমন তুই, তেমন তোর ঐতিহাসিক। এরপর তো বলবি, সোনার ভারত সত্যি সত্যি সোনা দিয়ে তৈরি। ওরে, মহাকাব্যের বিচিত্র জন্মকাহিনীগুলো কবির কল্পনামাত্র। আচ্ছা তুইই বল, ধৃতরাষ্ট্রের স্টেম সেল করে ছেলে হলে, তাঁর ভাই পাণ্ডুর বেলায় দেবতাদের ডাকতে হল কেন? দশরথের যখন ছেলেপুলে হচ্ছিল না তখন যজ্ঞের পায়েস খেতে হল কেন? না কি বলবি ওটা স্পার্ম ব্যাঙ্কের উদাহরণ? যজ্ঞের পায়েস আসলে স্পার্ম, অন্যের ঔরসে ছেলেপুলে হয়েছিল?

modi cartoon2ganesh3

নরেনঃ ছিঃ ছিঃ প্রভু শোনাও পাপ। প্রাচীন ভারতে ওসব ছিল না।

গণপতিঃ না ছিল না। স্পার্ম ব্যাঙ্ক, স্টেম সেল, ক্লোনিং কিসসু ছিল না। বদলে ছিল নিয়োগ পদ্ধতি।

নরেনঃ সেটা কী প্রভু?

গণপতিঃ কোনও সন্তানহীনা নারীর স্বামী অক্ষম হলে বা মারা গেলে, ভাসুর-দেওরের সঙ্গে সহবাসে বংশরক্ষা করা হত। একে বলে  নিয়োগপ্রথা।

নরেনঃ না প্রভু না, হিন্দু নারী দেওরের সঙ্গে — পারে না, ওসব ওরা পারে, ওই বর্ডারের ওপারের ওরা।

গণপতিঃ মূর্খ! মহাকাব্য খুলে দ্যাখ, ধৃতরাষ্ট্র-পাণ্ডুর জন্ম কী করে হয়েছিল। আরও শোন, দেবগুরু বৃহস্পতি তাঁর বউদি মমতাকে ধর্ষণ করেছিল।

নরেনঃ দাঁড়ান, দাঁড়ান কী নাম বললেন? মমতা? আর একবার বলুন তো, ব্রিগেডে গিয়ে বলব।

গণপতিঃ চোপ! চুপ করে শোন। প্রাচীন যুগের মানুষও প্রাচীন ছিল।  প্রাচীন যুগে স্টেম সেল, প্লাস্টিক সার্জারি থাকা সম্ভব নয়। কোনও দেশেই সম্ভব নয়। প্রাচীন যুগের সবই কি ভালো?  সে যুগে সমকামিতা, পশুকামিতা, সতীদাহ, বহুবিবাহ এই সব ছিল। সেগুলো কি তোরা করিস?

নরেনঃ ঠিকই বলেছেন প্রভু। বহুবিবাহ আমরা আর করি না। ওই ওরা করে, বর্ডারের ওপারে। ওরা প্রভু ক্ষমতার জন্য ভাইকেও খুন করে। আমরা কখনও করিনি।

গণপতিঃ কি ভ্রাতৃহত্যা করিসনি? মহাভারতের যুদ্ধটা কী রে? আর শোন বহুবিবাহটা যেমন খারাপ, বিয়ে করা বউকে ঘরে না নেওয়াও খারাপ।

নরেনঃ ওটা তো আমি রামচন্দ্রকে দেখে শিখেছি। বউ তাড়ানো।  (একটু থেমে) আচ্ছা প্রভু, স্টেম সেল ছিল না সেটা তো বুঝলাম। কিন্তু প্লাস্টিক সার্জারি তো ছিল?

গণপতিঃ ওরে মহাপণ্ডিত, শিবঠাকুর যদি আমার মাথায় প্লাস্টিক সার্জারি করতে পারেন তা হলে সতীর খণ্ড খণ্ড হওয়া দেহটাকে জুড়ে দেননি কেন?

নরেনঃ বোধহয় খণ্ডগুলো খুঁজে পায়নি হুজুর।

গণপতিঃ খুঁজে পায়নি হুজুর। দুনিয়া সুদ্ধু সবাই ৫১টা খণ্ড খুঁজে পাচ্ছে, শুধু আমার বাবাই পায়নি। তোরা যে বলিস তখনকার দিনে বিমান ছিল, বিমানে চেপে খুঁজল না কেন?

নরেনঃ এইবার প্রভু আপনি আসল পয়েন্টে এসেছেন। তখনকার দিনে বিমান ছিল, আমাদের এক বিজ্ঞানী সায়েন্স কংগ্রেসে বলেছেন।

গণপতিঃ এই সব কথা একজন বিজ্ঞানী বলেছেন!  তা বিমানটা উড়ত কোন জ্বালানিতে? তখন তো পেট্রোল আবিস্কার হয়নি। পুরান শাস্ত্র কোথাও পেট্রলের কথা নেই। কয়লার কথাও নেই।

নরেনঃ তাই তো! তা হলে বোধ হয় বিদ্যুতে উড়ত। জলবিদ্যুৎ।

গণপতিঃ  আরে গাধা! জলবিদ্যুৎ বানাতে গেলে নদীতে বাঁধ দিতে হয়। কিন্তু আর্যরা নদীর পথ রোধ করতে চাইত না। তাই হরপ্পা সভ্যতার তৈরি করা বাঁধ দেবরাজ ইন্দ্র ভেঙে দিয়েছিলেন। ইতিহাস, বিজ্ঞান, পুরাণ সবেতেই তোর যা জ্ঞান দেখছি তাতে রাস্তা ঝাঁট দেওয়াই তোর ভবিষ্যৎ।

নরেনঃ আপনি প্রভু বড্ড অপমান করেন। কোথায় আমি প্রাচীন ভারতের গুণগান করছি, আর আপনি আমাকে ল্যাং মারছেন।

গণপতিঃ গুণগান করবি কর। কিন্তু যেটুকু গুণ ছিল সেটুকুই বল। শোন বাবা, আমাদের অতীতকে সবাই শ্রদ্ধা করে। কিন্তু জোর করে গাঁজাগল্প বানাতে গেলে লোকে আমাদের বর্তমান নিয়ে হাসাহাসি করবে। এই যে তোরা বললি, নাসার থেকে পাঁজি বড়, পাঁজিতে তো বলা আছে মাথায় টিকটিকি পড়লে রাজা হয়, তোর মাথায় কি টিকটিকি পড়েছিল?

নরেনঃ কিন্তু প্রভু আমাদের দেশে অনেক কিছু ছিল যা সাহেবদের ছিল না।

গণপতিঃ ছিল নাই তো। তা বলে আমাদের যেটা ছিল না সেটাকেও ছিল বলতে হবে ? আমাদের কি নিউটনের সুত্র জানা ছিল?

নরেনঃ  ছিল প্রভু ছিল। গোধরা দাঙ্গার সময় প্রমাণ করেছি প্রত্যেক ক্রিয়ার সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে।

গণপতিঃ পাষণ্ড! একেবারে পাষণ্ড! ওরে, আমাদের দেশে নরেন্দ্র বলে আরও একজন ছিল।  সে বলেছিল, সব ভারতবাসী আমার ভাই। তুই সেই ভাইয়ের বুকে? খুব তো ধর্ম ধর্ম করিস। জানিস নারায়নের শেষ অবতার বুদ্ধ বলে গেছেন, অহিংসা পরম ধর্ম।

নরেনঃ ও মশাই, আপনিই তো একটু আগে বললেন, আমাদের মহাকাব্যে ভ্রাতৃহত্যা ছিল।পাণ্ডবরাও…

গণপতিঃ প্রাচীন যুগে যা ছিল তা এখনও থাকবে? তোর মাথায় কী আছে রে? ওটা কি দক্ষরাজার মাথা?

নরেনঃ এর মধ্যে আবার দক্ষরাজা কী করল?

গণপতিঃ শোন রে মুদি, শিবঠাকুর দক্ষরাজার মাথা কেটে ফেলার পর, তার ধড়ের সঙ্গে ছাগলের মুণ্ডু ফিট করে দিয়েছিল।

নরেনঃ  এই তুই কে ঠিক করে বল তো! তুই গণেশ না গনি? হিন্দু না মুসলমান? আজ ছাগল বলছিস, কাল তো বকরিদে জবাই করবি।

(এই বলে গণেশের শুঁড় ধরে দিল এক টান। সঙ্গে সঙ্গে খুলে গেল মুখোশ। )

নরেনঃ একি? এ কে? সর্দার আপনি! সর্দার আমি তো আপনার পরম ভক্ত। আপনার মূর্তি বসাচ্ছি!

সর্দারঃ হ্যাঁ তোমার কীর্তির কথা পরলোকেও গিয়ে পৌঁছেছে। রাজকোষের টাকা খরচ করে আমার শ্রাদ্ধ করছ। (কান্না)

[নেপথ্যে দুটি কণ্ঠস্বর শোনা যায়। “ভোর হয়ে এল। চলে আসুন সর্দার।“ ]

 

সর্দারঃ  (কাঁদতে কাঁদতে) যাই বাপু। যাই পণ্ডিতজী। এই মূর্খের পাল্লায় পড়ে আমার কি হাল হয়েছে দেখুন। ইতিহাস আর পুরানের তফাৎ বোঝে না, বিজ্ঞান আর ধর্মের তফাৎ বোঝে না। সবসময় হামবড়াই, ‘আমি বড়,’ ’আমি বড়’। এদিকে মনটা ছোট। আমার দেশে! আমার রাজ্যে! মরেও  শান্তি নেই আমার। (কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে যান)।

নরেনঃ যতসব ফালতু নৌটঙ্কি, (বলে স্টেজের সামনে এসে ৫৬ ইঞ্চি ছাতি ফুলিয়ে দাঁড়ায়। আলো নিভে আসে।)

[নেপথ্যে শিশুকণ্ঠের আবৃত্তি শোনা যায়, ‘আপনারে বড় বলে বড় সেই নয়, লোকে যারে বড় বলে বড় সেই হয়। ’]

নরেনঃ এই কে রে কে?

(অন্ধকারের মধ্যে হাতড়ে হাতড়ে খুজতে থাকে মুদি। যবনিকা পতন হয়। )

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × two =

You might also like...

shimultala2

শীতের ছোট্ট ছুটিতে শিমূলতলা

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk