Loading...
You are here:  Home  >  বিনোদন  >  Current Article

ফুলগুলো সরিয়ে নাও, আমার লাগছে

By   /  June 30, 2015  /  No Comments

স্বরূপ গোস্বামী

আপনার নাম করলে এখন লোকে দাদার কীর্তির কথা বলে না। আপনার নামের সঙ্গে ‘গুরুদক্ষিণা’ বা ‘ভালবাসা ভালবাসা’ নামগুলোও আসে না। আরও কত অসাধারণ সব ছবি। সারল্যমাখা সেই মুখ, দারুণ সে অভিনয়। এগুলো আর উঠে আসে না। তাপস পাল মানেই সেই স্মরণীয় সংলাপ, ‘ছেলে ঢুকিয়ে দেব। রেপ করে ছেড়ে দেবে।’

গত এক বছরে মানুষের মুখে মুখে ফিরেছে আপনার সেই অমৃতবচন। যে কোনও সিনেমার জনপ্রিয় ডায়গলের থেকেও বেশি পরিচিতি পেয়েছে সংলাপটা। এমনকি রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দদের প্রবাদ হয়ে যাওয়া বাণীগুলোর থেকেও যেন বেশি পরিচিতি পেয়েছিল নাকাশিপাড়ায় আপনার সেই কথাগুলো।

তারপর অনেক জলঘোলা হয়েছে। প্রথমে দিদির কাছে, পরে জনতার কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন। আজ, এক বছর পর প্রশ্ন উঠছে, সেই ক্ষমা চাওয়াটা আন্তরিক ছিল তো ? সেদিন সত্যিই মন থেকে ভুল স্বীকার করেছিলেন তো ? সেদিন ওই মন্তব্য করার জন্য সত্যিই আপনি অনুতপ্ত ছিলেন তো ?

tapas pal3

সোমবার কৃষ্ণনগর জেলা আদালতে আপনার হাজিরার দিন ছিল। হাজির হলেন। নিমেশে জামিনও হয়ে গেল। জামিন যে হবে, সেটা আমরা জানতাম। সিআইডি তদন্তের নামে যে প্রহসন হচ্ছে, সেটাও কারও অজানা ছিল না। সিআইডি যে তথ্যপ্রমাণ বা ভিডিও ফুটেজ তুলে ধরবে না, এ আর বিচিত্র কী ! সেও তো জানা কথা। যেমন জানা কথা, সরকারি আইনজীবী আপনার বিপক্ষে কোনও কথি বলবেন না। বিশ্বাস করুন, এগুলোর জন্য আমরা তৈরিই ছিলাম। খুব একটা রাগ হয়নি। সিআইডি, পুলিশ, সরকারি আইনজীবী– এঁদের বিশ্বাসযোগ্যতা যে জায়গায় এসে পৌঁছেছে, তাতে ঠিকঠাক কিছু হয়ে গেলে, সেটাকেই ব্যতিক্রমী মনে হয়।

আপনি বা আপনার আইনজীবী জামিন পাওয়ার চেষ্টা করবেন, সেটাও স্বাভাবিক। এই পর্যন্ত যা ছিল, মোটামুটি প্রত্যাশিত। কিন্তু তারপর যা হল, সেটা দেখে আরও একবার অবাক হলাম। আপনি জামিন পেতেই আপনার অনুগামীরা হাততালি দিতে শুরু করলেন। আপনার নামে জিন্দাবাদ দিতে শুরু করলেন। তারপর যা হল, তা আরও সাঙ্ঘাতিক। আপনার অনুগামীরা ফুলের মালা সঙ্গেই এনেছিলেন। আপনার গলায় বেশ কয়েকটা মালা পরিয়ে দেওয়া হল। আপনিও কী অবলীলায় সেই মালা গলায় পরে নিলেন! যেন কতই মহৎ কাজ করে আদালত থেকে বেরোচ্ছেন। যেন বিবেকানন্দ শিকাগো জয় করে ফিরছেন। যেন সঞ্জয় সেন আই লিগ জিতিয়ে ফিরলেন।

জামিন পেয়েছেন, ভাল কথা। পরিষ্কার করে বলুন, সেদিন ওই মন্তব্য করেছিলেন  নাকি করেননি ? ওই ভিডিও ফুটেজগুলো সত্যি নাকি মিডিয়ার বানানো ? নাকি সিপিএমের চক্রান্ত ? ওই মন্তব্যের জন্য আপনি নিজেই ক্ষমা চেয়েছিলেন। গত এক বছর নানা উৎসব, অনুষ্ঠান, দলীয় কর্মসূচি এড়িয়ে গেছেন। মনে হয়েছিল, কিছুটা হয়ত চক্ষুলজ্জা বা অনুশোচনা হয়েছে। মানুষ ভুল করে। ভুল হয়ে যায়। কিন্তু যখন একজন মানুষ সেই ভুলের জন্য অনুতপ্ত হন, ক্ষমা চান, কোথাও একটা দুর্বলতাও এসে যায়। সেই ভুলস্বীকারকে তখন আন্তরিক ভাবতেই ইচ্ছে করে। আপনার ক্ষেত্রেও তেমনটাই ভেবেছিলাম।

কিন্তু আপনি নিজেই আবার বুঝিয়ে দিলেন, সেই ভুল স্বীকার করা লোকটা আসল তাপস পাল ছিলেন না। সেটা নিছকই একটা অভিনয়। আসল মানুষ বোধ হয় সেই লোকটাই, যে লোকটা ছেলে ঢুকিয়ে রেপ করার কথা বলেছিল। সেদিনও আপনার চারপাশে থাকা লোকেরা প্রবল হাততালি দিয়েছিল। যে লোকটা নিজেকে ‘চন্দননগরের মাল’ বলেছিল। সেই বিকৃত উল্লাসের সঙ্গে আদালতের ওই উল্লাসের কি খুব তফাত আছে ? সেদিন ফুলের মালা পাননি, এদিন সেটাও পেয়ে গেলেন। সেই অপূর্ণতাটুকুও আর রইল না।

বহুযুগ আগের কথা। মুণী-ঋষিরা বলতেন, যে যেমন মানুষ, তার চারপাশে ঠিক তেমন সঙ্গীও জুটে যায়। আরও কাউকে কাউকে দেখে সেই কথাটা মনে পড়ে যায়। আপনাকে দেখেও মনে পড়ে যাচ্ছে। আপনি আদালতে যাচ্ছেন। সেই ‘হাততালি দেওয়া’ লোকগুলো ঠিক জুটে গেল। তারাও বুঝে গেছেন, খারাপ কাজে হাততালি দিলে নম্বর বাড়ে, যেমন অনেকের বাড়ছে। তারা না হয় ‘নম্বর বাড়ানো’র অতি উৎসাহে মালা নিয়ে গেল। আপনি সেই মালা গলায় পরে নিলেন ? কী বীরত্বের কাজ করলেন ? সিআইডি বা সরকারি আইনজীবী প্রমাণ তুলে ধরলেন না, তাই জামিন পেলেন। সেটা বুঝি খুব বাহাদুরি ? সেটা বুঝি খুব বীরত্ব ?

নিজেকে বাঁচানোর জন্য প্রভাব খাটিয়েছেন, এটুকু না হয় মেনে নেওয়া গেল। এটুকুর সঙ্গে আমরা ইদানীং অভ্যস্থ হয়ে পড়েছি। তাই বলে মালা নিতে হবে ? অনুগামীরা যখন মালা পরিয়ে দিচ্ছেন, একবারও মনে হল না, একটু এড়িয়ে যাই বা বারণ করি ?

কতকাল আগে কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় লিখেছিলেন, ‘ফুলগুলো সরিয়ে নাও, আমার লাগছে।’

আপনি বলতে পারলেন না ?

অবশ্য আমাদেরই ভুল। সুভাষ মুখোপাধ্যায় পড়লে, ওই ‘ছেলে ঢুকিয়ে দেওয়া’র সংলাপ জীবনেও আপনার মুখ থেকে বেরোতো না।

মালাই যদি পরবেন, তাহলে সেদিন ওইভাবে ক্ষমা চেয়েছিলেন কেন ? আরও একটা রিজয়েন্ডার পাঠান। বলুন, সেদিন ক্ষমা চেয়েছিলাম, তার জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী। ক্ষমা চাওয়া আমার উচিত হয়নি।

তাহলে, অন্তত আসল তাপস পালকে চেনা যাবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × 3 =

You might also like...

amitabh2

কী ভেবেছিলেন, গুরুং খাদা পরিয়ে বরণ করবেন!‌

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk