Loading...
You are here:  Home  >  জেলার বার্তা  >  দক্ষিন বঙ্গ  >  Current Article

যে মেয়েটা রোজ রাতে বদলায় হাতে হাতে

By   /  March 22, 2015  /  No Comments

শুধু নিষিদ্ধপল্লি বা রিসর্ট নয়, রাস্তার ধারেও নানা উপায়ে চলছে দেহ ব্যবসা। কারা নামছেন এই পেশায় ? খদ্দেরই বা কারা ? কীভাবে চলছে এই আদিম কারবার ? সবকিছু খোঁজ নিয়ে হদিশ দিলেন সংহিতা বারুই।

 

 

পশ্চিমবঙ্গ যেখানে ধর্ষণে  প্রথম স্থানাধিকারী , রাজ্য রাজনীতি থেকে সাধারণ মানুষ সবাই যখন প্রতিবাদে সামিল , তখন এ  রাজ্যের কিছু মহিলা  সামান্য কিছু রোজগারের আশায় চলমান ট্রাকে তাদের যৌনতা ফেরী করে বেড়াচ্ছে ভিন রাজ্যে । কল্লোলিনী কলকাতার যৌন পল্লীর কর্মীরা যেমন আছে তেমনই আছে ৬নং ৭নং জাতীয় সড়কের ধারে বসবাসকারী নিম্ন বিত্ত পরিবারের মহিলারা । যৌন ব্যবসা  দিন দিন  ছড়িয়ে  পড়ছে জাতীয় সড়কের ওপর চলমান ট্রাক , হোটেল , ধাবাতে।

women3

সাধারণ মানুষ  থেকে শুরু করে প্রশাসনিক কর্তা সবাই উদ্বিগ্ন । এই ব্যবসা ছড়িয়ে  পড়েছে  গৃহবধূ থেকে শুরু করে কলেজ ছাত্রীদের মধ্যে । পুলিসে ভূমিকা  নীরব দর্শক বলেই জানালেন নাম প্রকাশে  অনিচ্ছুক এক পুলিশকর্মী । কারণ বেশি উপার্জনের আশায় নিজেরাই এই ব্যবসায় পা রাখে । মূলত এই ব্যবসায় রমরমা হাওড়া, ধূলাগড় ট্রাক টার্মিনাল , কোনা এক্সপ্রেসওয়ে  সংলগ্ন কোনা ট্রাক টার্মিনাল এমনকি জাতীয় সড়কের ওপর হোটেল গুলোতে । কয়েক হাজার ড্রাইভার ও খালাসি প্রতিদিন বিশ্রাম নেন এইসব টার্মিনালে । বিভিন্ন রাজ্য যাতাযাতের আগে পড়ে এখানে একটু থামা । তাদের যৌন ক্ষুধা মাটাতেও নিজেদের উপার্জন বাড়াতে স্থানীয় এলাকার কিছু মহিলা পেশা  হিসাবে বেছে নিয়েছে এই কাজকে । স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ , বিকাল হলেই পাটরানী সেজে রাস্তার ধারে দাঁড়িয়ে পড়ে ওই সব মহিলারা । এর পর চাহিদা মত টাকা পেলেই  টার্মিনালে  ড্রাইভারের সিটেই  ডাক পড়ে পছন্দ মত  সঙ্গীর । কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায়  এই সব মেয়েরা ড্রাইভার ও খালাসির চাহিদা মেটাতে এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্য পাড়ি দেয় । আবার ফেরার সময় অন্য খদ্দের  ধরে একই ভাবে এ রাজ্য ফিরে আসে ।

women2

৬নং ও ৭ নং জাতীয় সড়ক বরাবর  জগাছা ,সাঁকরাইল , আমতা , বাগনান  এলাকার বহু গৃহবধূ  অভাবের  তাড়নায় বাড়ির কাজ সেরে পার্ট টাইম এই ব্যবসা চালান কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ও রয়েছ । ভালো খদ্দের পেলে কয়েক ঘণ্টার জন্য গাদিয়ারা , গড়চুমুক , উলুবেড়িয়ার গঙ্গার ধারের রিসর্ট  ও নৌকা গুলিতে খানিকটা  সময় কাটিয়ে ও আসে । নৌকায় পর্দা ফেলে ঘণ্টা  হিসাবে  টিম টিম আলোয় জাতীয় সড়ক ছেড়ে এই  ব্যবসা এখন গ্রামের  ভিতরের ও প্রবেশ করেছে । পুলিশের  মতে গ্রামে এই ব্যবসা বিস্তারের  মূল কারণ মোবাইল ফোনের  ব্যবহার । মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সরাসরি  খদ্দেরের সঙ্গে  দাম দস্তুর পাকা করা যায় । পছন্দের জায়গাও ঠিক করা হয়ে যায়, ফলে সময়টা ও যথেষ্ট পাওয়া যায়  । এ ক্ষেত্রে  ও দালাল একটা মাধ্যম হিসাবে  কাজ করে । আগে থেকেই তারা সব ব্যবস্থা করে দেয় । মোবাইল এর মাধ্যম ব্যবসা হলে  ধরা পড়ার ভয় থাকে না। দ্রুত সিম কার্ড বদল করলেই হল । ফলে ব্যবসার রমরমা অনেক । তবে পুলিশের উচ্চ পদস্থ  কর্তারা  জানিয়েছেন , এই ধরনের ব্যবসার কথা মুর্শিদাবাদ , বর্ধমানে শুনলেও হাওড়ার আশে পাশের অঞ্চলে এই ধরনের কাজ হয় তা ওনার জানা নেই । তবে খোঁজ নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen − 5 =

You might also like...

chalo lets go

অঞ্জনের একটা ছবিই চোখ খুলে দিল

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk