Loading...
You are here:  Home  >  অন্যান্য  >  আন্তর্জাতিক  >  Current Article

 আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করেছিলেন গ্রেগঃ শচীন

By   /  November 3, 2014  /  No Comments

সোহম সেন

অনেক বিতর্কের মাঝেও তিনি অবিচল। সচরাচর মুখ খোলেন না। কাউকে আক্রমণ থেকেও দূরে থাকেন। মনের ভেতর ঝড় বয়ে গেলেন বাইরে থেকে শান্তই মনে হয়। কিন্তু এবার নিজেকে কিছুটা মেলে ধরছেন শচীন তেন্ডুলকার। ৬ নভেম্বর প্রকাশিত হচ্ছে তাঁর আত্মজীবনী। আগের দিন বেরিয়ে এসেছিল অধিনায়কত্বের সেই ভয়াবহ দিনগুলি। এবার বেরিয়ে এল কোচ গ্রেগ চ্যাপেল সম্পর্কে না জানা কিছু কথা।

চ্যাপেলকে সরাসরি রিং মাস্টার বলেই চিহ্নিত করেছেন শচীন। তাঁর মতে, ‘উনি নিজের মতকে অন্যের উপর চাপিয়ে দিতেন। অন্যরা মানিয়ে নিতে পারবে কিনা, সেসবের পরোয়া করতেন না। বাধ্য হয়ে আমি বিসিসিআই-কে বলেছিলাম, বিশ্বকাপে গ্রেগকে যেন দলের সঙ্গে না রাখা হয়। কারণ, বুঝতে পারছিলাম, তাঁর কোচিংয়ে ভাল কিছু হওয়ার নয়। দলের মধ্যে একটা আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়ে গিয়েছিল। যেখান থেকে আমরা সবাই বেরিয়ে আসতে চাইছিলাম।’

sachin2

তুলে এনেছেন সৌরভ গাঙ্গুলির প্রতি অবিচারের কথা, ‘গ্রেগ বলতেন, ভারতের কোচ হওয়ার ব্যাপারে সৌরভ আমাকে সাহায্য করেছে বলে আমি চিরদিন ওকে দলে রেখে দেব, এটা কখনই হবে না।’ তারপরই শচীনের সংযোজন, ‘সৌরভ গাঙ্গুলি ভারতের সর্বকালের সেরাদের একজন। তাকে দলে থাকতে গ্রেগের অনুগ্রহের কোনও দরকার ছিল না।’ সিনিয়র ক্রিকেটারদের সম্পর্কে গ্রেগের মনোভাব কেমন ছিল, তাও লিখেছেন শচীন, ‘আসলে উনি চাইছিলেন, একে একে সিনিয়রদের সরিয়ে দিতে। তাই নানাভাবে দলের ছন্দ নষ্ট করে দিতেন। একবার ভিভিএস লক্ষ্মণকে বললেন, তোমাকে ওপেনিং করতে হবে। লক্ষ্ণণ জানাল, আমি আগে ওপেন করেছি। ঠিক সুবিধা করতে পারিনি। এখন মিডল অর্ডারে নিজেকে সেট করেছি। তখন গ্রেগ বলে বসলেন, এই বয়সে বাদ গেলে আর ফিরে আসতে পারবে না। তিনি বোর্ডের উপর বারবার চাপ তৈরি করছিলেন, যেন সিনিয়রদের সরিয়ে জুনিয়রদের আনা হয়।’

 

তুলে এনেছেন ২০০৭ বিশ্বকাপের ঠিক কয়েকমাস আগের কথা। যেখানে রাহুল দ্রাবিড়কে সরিয়ে তাঁকে ক্যাপ্টেন করার প্রস্তাব নিয়ে এসেছিলেন গ্রেগ। শচীনের কথায়, ‘বিশ্বকাপের ঠিক একমাস আগে উনি আমার বাড়িতে হাজির। বললেন বিশ্বকাপে আমাকে উনি ক্যাপ্টেন করতে চান। কয়েকঘণ্টা ছিলেন। যা যা বললেন, তাতে বুঝতে পারলাম, ক্যাপ্টেনের প্রতি তাঁর সামান্যতম শ্রদ্ধাও নেই। আমি তো অবাক। আমার পাশে বসা অঞ্জলিও অবাক গ্রেগের এমন প্রস্তাব শুনে। উনি যতক্ষণ ছিলেন, সারাক্ষণ আমাকে বোঝানোর চেষ্টা করে গেলেন। তাঁর যুক্তি ছিল, আমি দায়িত্ব নিলে তিনি আর আমি দলের উপর একটা নিয়ন্ত্রন তৈরি করতে পারব।’

কীভাবে গ্রেগ কৃতিত্ব নিতেন, সে কথাও উঠে এসেছে শচীনের কলমে, ‘আমার স্পষ্ট মনে আছে, যখনই দল জিতত, বাসে ওঠার সময়, হোটেলে ফেরার সময় তিনি সবার আগে থাকতেন। যেন সব কৃতিত্বই তাঁর। আবার যখন টিম হারত, তখন জোর করে অন্যদের এগিয়ে দিতেন। নিজে থাকতেন পেছনে। জন রাইট বা গ্যারি কারস্টেন কিন্তু কখনও এমনটা করতেন না। তাঁরা দলের সাফল্যেও আড়ালেই থাকতেন।’

বিশ্বকাপের পর তাঁর উপর দিয়ে যে ঝড় বয়ে গেছে, তাও উঠে এসেছে, ‘আমরা এভাবে ছিটকে যাব, ভাবিনি। খুব ভেঙে পড়েছিলাম। নানা সমালোচনা হচ্ছিল। কোথাও লেখা হল এন্ডুলকার। সত্যিই খুব কষ্ট হয়েছিল। সমালোচকরা সমালোচনা করবেন, এটা মেনে নেওয়া যায়। কিন্তু কোচ যখন কমিটমেন্ট নিয়ে প্রশ্ন তোলেন, তখন সেই কষ্ট আরও বেশি। এত বছর দেশের জন্য স্বার্থত্যাগ করার পর এই অপবাদ প্রাপ্য ছিল না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen − 1 =

You might also like...

yeti abhijan

ইয়েতির চেয়ে ঢের ভাল ছিল মিশর রহস্য

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk