Loading...
You are here:  Home  >  নিয়মিত বিভাগ  >  খোলা চিঠি  >  Current Article

শুভেন্দু, দেওয়াল লিখনটা পড়তে পারছেন?

By   /  December 22, 2015  /  No Comments

রক্তিম মিত্র

কাল থেকেই আপনাকে নিয়ে চর্চা শুরু। প্রায় সব চ্যানেলেই ছড়িয়ে গিয়েছিল, আপনি নন্দীগ্রাম থেকে প্রার্থী হচ্ছেন। আপনি রাজ্যের মন্ত্রী হচ্ছেন। নিছক জল্পনা বা গুজব নয়, স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী সরকারি মঞ্চে এমন কথা বলেছেন।
আজ সব কাগজেও সেটাই যেন সবথেকে বড় খবর। অনেকে ভাবছেন, তৃণমূলনেত্রী বোধ হয় আপনাকে খুব গুরুত্ব দিচ্ছেন। কী জানি, আ্পনি নিজেও এমনটা ভাবছেন কিনা। আর তো পাঁচ ছমাসের মধ্যেই বিধানসভা ভোট। হয়ত দেখব, নন্দীগ্রামে আপনাকেই প্রার্থী করা হল।
মুখ্যমন্ত্রী হঠাৎ মুখ ফসকে বলে ফেলেছেন, এমন ভাবার কোনও কারণ নেই। ভেবেচিন্তেই বলেছেন। এবং আপনাকে গুরুত্ব দেওয়ার জন্য নয়, বরং আপনার গুরুত্ব খর্ব করার জন্যই এমন অভিনব পরিকল্পনা।

subhendu4

আপনি নিশ্চয় ভুলে যাননি, বছর দুই আগেও আপনি তৃণমূল যুব কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি ছিলেন। আজ আপনি বৃদ্ধ হয়ে গেছেন, এমন নয়। কিন্তু সেই পদে আপনি আর নেই। কারণ, সেই পদে অন্য একজনকে আনা দরকার ছিল। তাঁকেই আনা হয়েছে।
দিল্লিতে আগামীদিনে তৃণমূলের মুখ কে হতে পারেন? কদিন আগে যে সর্বকনিষ্ঠ সদস্যকে রাষ্ট্রসংঘে ভাষণ দিতে পাঠানো হল, সেই তিনিই। কিন্তু আপনি থাকলে তাঁকে তুলে ধরাটা একটু কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছিল। বাকি সবাই মোটামুটি বশ্যতা মেনেই নিয়েছেন। আপনি থাকলে সেটা বোধ হয় ঠিকঠাক সম্পূর্ণ হচ্ছিল না। কারণ, বাকি সাংসদদের পায়ের তলায় মাটি থাকুক আর না থাকুক, আপনার আছে। সাংসদদের মধ্যে নেত্রী যাঁকে সবথেকে বেশি ভয় পান, যাঁকে আগামীদিনে নিজের চ্যালেঞ্জার মনে করেন, সে অন্য কেউ নয়, আপনি।
আপনি যদি সংসদ ছেড়ে এই বাংলায় ফিরে আসেন, তাহলে দিল্লির রাজনীতিতে বিশেষ একজনকে তুলে ধরতে আর বেগ পেতে হবে না। তিনিও নিশ্চিন্তে পিসির রাজ্যপাট চালাতে পারবেন। আর মেদিনীপুরে? ধরা যাক, আপনি জিতলেন। রাজ্যে কিছু একটা মন্ত্রী হবেন। দপ্তরে সর্বাধিনায়িকার ছবি টাঙাতে হবে। একটি সিদ্ধান্তও নিজে নিতে পারবেন না। কথায় কথায় বলতে হবে, ‘মাননীয় মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায়’। পারবেন তো ?
কয়েকমাস আগেও জোর গুঞ্জন ছিল, আপনি নাকি বিজেপি-তে যাচ্ছেন। রাজ্য নেতাদের সঙ্গে নয়, কথা হচ্ছিল একেবারে কেন্দ্রীয় স্তরে। আচ্ছা, আপনাকে দিল্লির নেতারা এত গুরুত্ব দিচ্ছিলেন কেন? এম পি বলেই। রাজ্যের একজন বিধায়ক হলে বা সাধারণ একজন মন্ত্রী হলে সেই গুরুত্ব আদৌ পেতেন? আগামীদিনে অন্য দলের কাছে আপনার সেই গুরুত্ব পাওয়ার রাস্তাটাও যেন সঙ্কুচিত হয়ে গেল।
subhendu2

আপনার ছেড়ে যাওয়া তমলুক আসনে কাকে আনা হতে পারে? জোর গুঞ্জন, তমলুকেরই প্রাক্তন এক সাংসদকে। তিনি নাকি তৃণমূলে আসার জন্য দু-পা বাড়িয়ে আছেন। তাঁকে নিতে নেত্রীরও তেমন আপত্তি ছিল না। তাঁকে নেওয়া যাচ্ছে না শুধু আপনার আপত্তিতে। আগামীদিনে সেই আপত্তি কতটা জোরালো থাকবে, জানা নেই। তবে সেই ‘শেঠজি’ যদি তৃণমূলের টিকিট পেয়ে যান, অবাক হওয়ার কিছু নেই।
আর শেঠজি যদি একবার বৃত্তে ঢুকে পড়েন, নিজের প্রভাব ক্রমশ বাড়াবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে জেলাতেই ব্যস্ত রাখা যাবে। যদি আপনি অন্যদিকে ঝুঁকেও পড়েন, আপনার বিকল্প তৈরি।
এই দেওয়াল লিখনটা আপনি পড়তে পারছেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 + seventeen =

You might also like...

priyaranjan4

যাক, হাইজ্যাক অন্তত হল না

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk