Loading...
You are here:  Home  >  রাজনীতি  >  জাতীয়  >  Current Article

সাড়া না পেয়েই মোহভঙ্গ মুকুলের!

By   /  December 14, 2015  /  No Comments

কৌশিক রায়
আজ না হোক কাল, তিনি যে তৃণমূলে ফিরবেন, তা মোটামুটি জানাই ছিল। হয়ত একটা শিক্ষা দিতে চেয়েছিলেন। হয়ত নিজের গুরুত্ব দলনেত্রীকে বুঝিয়ে দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু আপাতত তা বোধ হয় হল না। সেই কারণেই ‘ঘর ওয়াপসি’ করতে হচ্ছে মুকুল রায়কে।
গিয়েছিলেন বিজেপির দরবারে। তাঁকে দলে নিতে রাজি হননি বিজেপি নেতৃত্ব। বাংলার নেতাদের যেমন আপত্তি ছিল, সর্বভারতীয় নেতৃত্বেরও দ্বিধা ছিল। সহজ কথা, মুকুল রায়কে দলে নেওয়ার অর্থ, মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে যোগাযোগের দরজা বন্ধ হওয়া। রাজ্যসভায় বিভিন্ন বিল পাসের ক্ষেত্রে মমতার সমর্থন প্রয়োজন। কিন্তু মুকুল রায়কে দলে নিলে আর সেই সম্ভাবনা থাকবে না। এটা বুঝেই ঝুলিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন বিজেপি নেতৃত্ব। লোকসভা নির্বাচনের পর তবু একটা হাওয়া উঠেছিল। তারপর সেই হাওয়া স্বাভাবিক নিয়মেই থমকে গেছে। দিল্লি ও বিহারে হারের পর আরও বড় ধাক্কা এসেছে। এই অবস্থায় বাংলায় তেমন কোনও সম্ভাবনাও নেই। তাই মুকুলকে দলে নিতে গিয়ে তৃণমূলের সঙ্গে অহেতুক শত্রুতা চায়নি বিজেপি।

mukul, mamata
এবার পড়ে রইল কংগ্রেস। স্থানীয় অধিকাংশ কং নেতার সঙ্গেই নানা সময়ে বৈঠক করেছেন মুকুল। কারও মত ছিল, কারও ছিল না। অধীর চৌধুরির মধ্যস্থতায় বসেছেন রাহুলের সঙ্গে, বসেছেন সোনিয়ার সঙ্গেও। দুজনেই তাড়াহুড়ো করেননি। বরং আরও সময় নিতে চেয়েছেন।সোনিয়া নাকি বলেছেন, বিহার ভোটের পর ভাবা যাবে। কিন্তু তারপর কংগ্রেসও আর আগ্রহ দেখায়নি। এক্ষেত্রেও এক যুক্তি, মুকুলকে নিতে গিয়ে মমতার সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করতে রাজি নয় কংগ্রেস। বিজেপি বিরোধী জোট করতে গেলে, সেই জোটে মমতাকে অনেক বেশি দরকার, এটা বেশ বুঝেছেন সোনিয়া-রাহুল।
বাকি পড়ে রইল বামেরা। তাঁদের সঙ্গেও বৈঠক হয়েছে মুকুলের। কিন্তু বামেদের একটা নিজস্ব কাঠামো ও মেশিনারি আছে। তাঁরা মুকুল রায়ের কথায় চলবেন কেন ?
নিজে অনুঘটক থেকে তিন শিবিরকে কাছাকাছি আনার একটা চেষ্টাও করেছিলেন। কিন্তু তা হওয়ার নয়। তাঁর কথা বাকি দলগুলো শুনতে যাবে কেন ? ভেবেছিলেন, তৃণমূলের একটা বড় অংশকে পাশে পাবেন। এই কদিনে নির্মম বাস্তবটাও বুঝে গেছেন। যে যতই আড়াল থেকে ‘পাশে আছি’ বলুক, আসল সময়ে কজনকে পাশে পাবেন, বেশ বোঝেন বিচক্ষণ মুকুল।

mukul roy5
ফলে, রাজনৈতিক অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখথে, নিজেকে প্রাসঙ্গিক রাখতে তৃণমূলের মূলস্রোতে থাকাটাই বুদ্ধিমানের কাজ মুকুলের পক্ষে। তিনি সেই পথেই পা বাড়াচ্ছেন। মোদির সঙ্গে একটা বৈঠকের অপেক্ষয় আছেন। সেই বৈঠক যদি হয়ও, তা নিতান্তই নিষ্ফলা হবে। মুকুলকে নিতে গিয়ে মমতাকে চটাতে চাইবেন না মোদি, এই সহজ সত্যিটা যাঁদের রাজনীতির সামান্য বোধবুদ্ধিটুকু আছে, তাঁরা সবাই বোঝেন।
তাই, মুকুলের ঘরে ফেরা ছাড়া আর উপায় নেই। হারানো সেই মর্যাদা কি ফিরে পাবেন ? এখনই হয়ত পাবেন না। কিন্তু দল ছেড়ে চলে যাওয়া অনেকেই কিন্তু স্বমহিলায় ফিরে এসেছেন। মুকুলের রাজনৈতিক বোধবুদ্ধি তাঁদের তুলনায় অনেক বেশি। কীভাবে আবার নিজের প্রাসঙ্গিকতা ফিরে পেতে হয়, তাঁদের অনেকের থেকে মুকুল ভাল বোঝেন। তাই বিধানসভার আগে, আবার যদি নম্বর টু হয়ে ওঠেন, এতটুকুও অবাক হবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × five =

You might also like...

radio3

না বোঝা সেই মহালয়া

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk