Loading...
You are here:  Home  >  ওপেন ফোরাম  >  Current Article

এখন রাজ্যপালও শত্রু হয়ে গেলেন!‌

By   /  July 5, 2017  /  No Comments

সত্রাজিৎ চ্যাটার্জি

নিউজে দেখলাম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী নাকি রাজ্যপালের ওপর ভারি রুষ্ট হয়েছেন। রাজ্যপাল নাকি তাকে তাঁর নিজের পদের ঊর্ধ্বে গিয়ে অনেক কথা বলেছেন। তাতেই আগুনে ঘি পড়েছে। এমনিতেই বিজেপি মনোনীত এই রাজ্যপাল বা বিভিন্ন প্রদেশে যেসব রাজ্যপাল নিযুক্ত হয়েছেন, তাদের নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। কিছুদিন আগেই ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগত রায় হিন্দু ও মুসলমানের সিভিল ওয়ার চেয়ে টুইট করে শিরোনামে এসেছিলেন। আসলে এনারা রাজ্যপাল পদের গুরুত্ব বোঝেন কিনা সেটাও একটা বড় প্রশ্ন, কারণ রাজ্যপাল যে সংবিধানের প্রতীক, কিন্তু প্রশাসনের নয়, এই সত্যটা তারা মনে হয় ভুলে যান মাঝে মাঝে, কারণ তাঁদের যে একটা পূর্ব রাজনৈতিক পরিচয় আর রং আছে, সেই হ্যাংওভার অনেকসময় তাঁরা কাটিয়ে উঠতে পারেন না। সেই পরিচিত কখনও কখনও বেশ প্রকট হয়ে পড়ে।

keshri nath tripathi

তা যাই হোক, এখন রাজ্যপাল শত্রু হয়ে গেল ! আর বামফ্রন্টের আমলে নন্দীগ্রামের ঘটনার পরে তদানীন্তন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধী যখন দিনে রাত্রে বাম সরকারকে দোষারোপ করতেন, তখন তিনি তদানীন্তন বিরোধী নেত্রী তথা বাংলার বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীর পরম সুহৃদ ছিলেন। সেই রাজ্যপালের সঙ্গে একযোগে বাম সরকারের বিরুদ্ধে কুৎসা, অপপ্রচার কিছুই তো করতে বাকি রাখেননি। সরকারি কাজে বাধা দিয়ে কোথাও পাল্টা বাধা পেলেই সোজা রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের কাছে নালিশ করে আসতেন, যেন রাজ্যপাল এসে তাঁর পক্ষই নেবেন আর বাম সরকারের বিপক্ষে যাবেন ! তাহলে আজকে নিজের প্রশাসনের দিকে আঙ্গুল তুললে কেন তাকে শত্রু বানাচ্ছেন ?

বাংলার বর্তমান রাজ্যপাল এক্ষেত্রে কিন্তু যা বলেছেন সেটা বস্তুতই সঙ্গত। গত দুদিন ধরে বারাসাত, দেগঙ্গা, বসিরহাট ইত্যাদি সংখ্যালঘু অধ্যুষিত স্থানে সেভাবে দাঙ্গা ও সাম্প্রদায়িক অশান্তি শুরু হয়েছে তা শুধু উদ্বেগেরই নয়, বাংলার সংস্কৃতির পক্ষে ঘোর লজ্জাজনক। যারা দিবারাত্র কথায় কথায় বামসরকারের ৩৪ বছরের শাসনকালকে দোষারোপ করেন, তারাও বলতে পারবেন না যে ওই সময়ের মধ্যে রাজ্যের নানাপ্রান্তে কোনও দাঙ্গা বা সাম্প্রদায়িক হানাহানি ছড়িয়ে পড়েছে। কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শুরু হলেও প্রশাসন দ্রুত সামলে নিয়েছে। নয়ের দশকের শুরুতে বাবরি কাণ্ডে যখন গোটা দেশ উত্তাল, তখন রাতের পর রাত পাহারা দিয়ে দাঙ্গার আঁচ লাগতে দেয়নি সতর্ক প্রশাসন। অথচ বিগত ৩-৪ বছরে বাংলাতেও সাম্প্রদায়িক অশান্তি উত্তরোত্তর বাড়ছে। কয়েক মাস আগেই ধূলাগড়ে দাঙ্গা হয়েছিল। আরও নানা জায়গা থেকে অপ্রিতিকর খবর আসতেই থাকে। ছড়িয়ে পড়ছে এক জেলা থেকে অন্য জেলায়। সুতরাং রাজ্যের সম্প্রীতির বাঁধন ভেঙে পড়ছে, যা আগামী বাংলার পক্ষে “অশনি সঙ্কেত”। এই অবস্থায় রাজ্যপাল রাজ্যের সর্বাঙ্গীন উন্নতির স্বার্থে মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রশাসনিক প্রধানকে উদ্বেগ প্রকাশ করে জিজ্ঞেস করতেই পারেন যে সেই সাম্প্রদায়িক হানাহানি বন্ধ করতে প্রশাসনের তরফে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এতে অন্যায়ের কিছু নেই। আমি ঠিক জানি না, কী ভাষায় তিনি বলেছেন মুখ্যমন্ত্রীকে, কিন্তু যা বলেছেন তার বিষয়বস্তু খুবই সমীচীন।

আর তাই রাজ্যপাল এখন প্রতিপক্ষ ! সত্যি ক্ষমতালাভের কি বিচিত্র মানসিকতা !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve + 2 =

You might also like...

land phone

এভাবে মজা করা ঠিক হয়নি

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk