Loading...
You are here:  Home  >  ওপেন ফোরাম  >  Current Article

চাইলেই শিরোনাম হতে পারি, বুঝিয়ে দিলেন পরেশ

By   /  July 18, 2017  /  No Comments

রক্তিম মিত্র

এই বাংলায় সবথেকে বেশি গণবিবাহ কে দিয়েছেন?‌ এই নিয়ে তেমন বিতর্ক নেই। পরেশ পাল। সম্ভবত, গোটা দেশেও এই ব্যাপারে তিনি সামনের সারিতেই থাকবেন।
এই বাংলায় সবথেকে বেশিবার ইলিশ উৎসব কে করেছেন?‌ এ ব্যাপারেও সম্ভবত শীর্ষেই থাকবেন পরেশ পাল।
একটা সময় ছিল, যখন পরেশ পাল মানেই নিত্যনতুন খবর। কখনও হ্যারিকেন নিয়ে মিছিল করেছেন, কখনও শহরের রাজপথে ছাগল–‌ভেড়া নিয়েও মিছিল করেছেন। রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে দেওয়া, অ্যাম্বুলেন্সে চড়ে বন্‌ধ সফল করতে বেরোনো, আরও নানা অভিনব বিষয়ের জন্য ছিল বিশেষ খ্যাতি। তখন এত চ্যানেল ছিল না। এত চরিত্রও ছিল না। মাঝে মাঝেই কাগজে খুঁজে পাওয়া যেত মানিকতলার এই লড়াকু যুব কং নেতাকে।

paresh pal
সেই রামও নেই, সেই অযোধ্যাও নেই। তাই পরেশ পালরা কোথায় যেন হারিয়ে যাচ্ছেন। কত নতুন নতুন চরিত্র ময়দানে এসে যাচ্ছেন। প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা সত্যিই মুশকিল। নাম না জানা লোকেরা সাংসদ হয়ে যাচ্ছেন। পাড়ার নেতারাও মন্ত্রী, এম এল এ হয়ে যাচ্ছেন। সেখানে পরেশ পাল চার বারের বিধায়ক। সারা রাজ্যে চেনা নাম। তৃণমূলের যে কয়েকজন নেতা মানুষের জন্য কাজ করেন বলে সুনাম আছে, পরেশ পাল অবশ্যই তাঁদের একজন। কিন্তু দিদিমণির সেই বৃত্তে জায়গা হচ্ছে না।
একেবারে ঠিক দিনটাকেই বেছে নিলেন। রাষ্ট্রপতি নির্বাচন বলে কথা। মুখ্যমন্ত্রী তো আসবেন বেলার দিকে। তখন সব ক্যামেরার দৃষ্টি তিনিই কেড়ে নেবেন। কিন্তু সকাল থেকেই নানা চ্যানেলে লাইভ টেলিকাস্ট। ওই তো, মোর্চার তিন বিধায়ক এসে গেছেন। ওই তো, পাশে দিলীপ ঘোষ। ব্যাস, আর কী চাই। বাজারে নেমে পড়লেন পরেশবাবু। অকারণেই হুমকি শুরু হয়ে গেল। পাহাড় নিয়ে বাজার গরম। এই ইস্যু নিয়ে কিছু করতে পারলেই কেল্লা ফতে। বেচারা দিলীপ ঘোষ। একেবারে নিরীহ মানুষটির মতো দাঁড়িয়ে ছিলেন। তাঁর দিকেও আঙুল উঁচিয়ে তেড়ে গেলেন পরেশ পাল। একা একাই নিজের সংলাপ আওড়াতে থাকলেন।
উদ্দেশ্য একদিক দিয়ে সফল। এত এত তারকা থাকলেও হেডিং কিন্তু সেই পরেশ পাল। আগেরদিন টিভিতে সারাক্ষণ ভেসে রইলেন। এমনকী মুখ্যমন্ত্রীর প্রেস কনফারেন্সও তেমন গুরুত্ব পেল না।
দিলীপ ঘোষকে চিৎকার করে বলে গেলেন, মমতা ব্যানার্জির দয়াতে তুমি বাংলায় আছো। দিলীপবাবু কিছুই বলেননি। তবে বলতেই পারতেন, ‘‌আমি তো মুখ্যমন্ত্রীর ছবি টাঙিয়ে জিতিনি ভাই। আপনি একবার ওই ছবিটা খুলে রেখে জিতে আসুন। মুখ্যমন্ত্রীর দয়াতেই আপনি বিধায়ক।’‌ অথবা, ‘‌বলতে পারতেন, আপনি চারবারে বিধায়ক। তবুও মন্ত্রী নন। মুখ্যমন্ত্রীকে বলব, এবার থেকে যেন আপনাকেও দয়া করেন।’‌
যাঁরা নয়ের দশকের খোঁজ রাখেন, তাঁরা জানেন, পরেশ পালের বেশিরভাগ কর্মসূচি হত রবিবারে। ছুটির দিন, মানুষের ভোগান্তি হবে না, এই ভেবে নয়। আসলে, রবিবার সব অফিস ছুটি থাকে। মহাকরণ, বিধানসভা, পুরসভা এগুলো তো খবরের খনি। এগুলো বন্ধ মানে, খবরের আকাল। অর্থাৎ, সোমবারের কাগজে জায়গা বেশি। অর্থাৎ, কী ধরনের কর্মসূচি নিলে হেডিং ও ছবি নিশ্চিত, অনেক আগে থেকেই জানেন। জাত ব্যাটসম্যান চূড়ান্ত অফ ফর্মেও দর্শনীয় কিছু শট নিতে পারেন। পরেশ পাল বুঝিয়ে দিলেন, তিনি এখনও জাত ব্যাটসম্যান। যতই তারকার ছড়াছড়ি থাক, এখনও তিনি চাইলেই শিরোনাম হয়ে উঠতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ten − 2 =

You might also like...

amstrong3

চাঁদে কি সত্যিই মানুষ গিয়েছিলেন ?

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk