Loading...
You are here:  Home  >  ওপেন ফোরাম  >  Current Article

যা বোঝার, অমিত শাহ বুঝে গেলেন

By   /  September 15, 2017  /  No Comments

রজত সেনগুপ্ত

পাণ্ডবরা তখন বনবাসে। যেখানে থাকতেন, সেখানে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা হল। জানতে পেরেছিলেন বিদূর। দূত মারফত খাঁচায় ভরে একটি ইঁদুর পাঠিয়েছিলেন যুধিষ্ঠিরের কাছে। বিচক্ষণ যুধিষ্ঠির বুঝতে পেরেছিলেন, ঠিক কী ইঙ্গিত করতে চাইছেন বিদূর। জঙ্গলে আগুন লাগলে ইঁদুর ঠিক বুঝতে পারে।
রাজনীতিতেও একটা কথা চালু আছে। সরকার পরিবর্তন হবে কিনা সবার আগে বুঝতে পারে দুই শ্রেণি। পুলিস আর ব্যবসায়ী। তাঁদের আচরণ দেখেই বোঝা যায়, ঠিক কী হতে চলেছে।
এই রাজ্যের বণিক সমাজ ও পুলিস ২০০৯ এর পর থেকেই বুঝতে পেরেছিল কী হতে চলেছে। সরকারের সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়ে চলেছিল। তখনকার বিরোধীদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা তৈরির চেষ্টাও চালিয়ে যাচ্ছিলেন তলে তলে। ২০১৪–‌র লোকসভা ভোটের ক্ষেত্রে বণিক সমাজ অনেক আগেই বুঝে গিয়েছিল কী হতে চলেছে। তাই মোদির প্রচারে হাজার হাজার কোটি খরচা করেছে।

amit shah3
তিনদিনের সফরে রাজ্যে ঘুরে গেলেন অমিত শাহ। অনেক আগে থেকেই সবাই জানতেন, বণিক সভার সঙ্গে তিনি আলোচনায় বসবেন। ঢাকঢোল পিটিয়ে রাজ্য বিজেপি নেতারা প্রচারও করেছিলেন। কিন্তু তারপর কী হল, সেটা সামনে আনা হল না। সেই সভা বাতিল করে নিঃশব্দে নিজের রাজ্যে ফিরে গেলেন বিজেপি সভাপতি। বলা হবে, প্রধানমন্ত্রীর জরুরি তলবে তিনি ফিরে গেছেন। আসল কথাটা হল, বাণিজ্য মহল থেকে একেবারেই সাড়া পাওয়া যায়নি। রাজ্য বিজেপি নেতারা চেষ্টা করেছিলেন, রাজ্যের নামী কয়েকজন ব্যবসায়ীকে অমিত শাহর সামনে হাজির করতে। কিন্তু অধিকাংশ ব্যবসায়ীই মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। এটা ঘটনা, কে কে আসছেন, রাজ্য সরকারের কাছে (‌আসলে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে)‌ সেই তালিকা ঠিক পৌঁছে যেত। তারপর কী কী হতে পারে, সেটা ব্যবসায়ীরা বেশ জানেন। তাই তাঁদের পক্ষে আসা সম্ভব ছিল না। হয়ত ইচ্ছেও ছিল না। কারণ, অমিত শাহর সঙ্গে বৈঠক করে বিশেষ লাভও হত না।
অমিত শাহকে কার দরকার হতে পারে?‌ যারা অন্য রাজ্যে বিনিয়োগ করতে পারবেন। কিন্তু অধিকাংশ ব্যবসায়ীর সেই সামর্থ্য নেই। তাঁদের ব্যবসা দশটা রাজ্যে ছড়িয়ে নেই। এক–‌দুটো রাজ্য নিয়েই তাদের কারবার। তাছাড়া, পরে যে এই অমিত শাহকে পাওয়া যাবে না, বা ছোট ব্যবসায়ীদের অমিত শাহ তেমন পাত্তা দেবেন না, এটাও তাঁরা বিলক্ষণ জানেন। উল্টে বিজেপি–‌র রাজ্য নেতারা চাঁদার জুলুম শুরু করে দেবেন। এক জায়গায় দিতেই হিমশিম খেয়ে যাচ্ছেন, আরও যদি নানা জায়গায় দিতে হয়, তাহলে পাততাড়ি গোটাতে সময় লাগবে না।
এই সহজ বিষয়টা রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব বোঝোননি। ভেবেছিলেন, অমিত শাহর নাম শুনেই সবাই শুটশুট করে হাজির হয়ে যাবেন।

amit shah4
২০০৯ এর পর থেকে বামফ্রন্ট ক্ষমতায় থাকলেও ব্যবসায়ীরা তাদের তেমন রেয়াত করেননি। কারণ, জানতেন পালাবদল আসন্ন। কিন্তু এক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা সেই ঝুঁকি নিতে পারবেন না। কারণ, জানেন অমিত শাহ যতই হুম্বিতুম্বি করুন, লোকসভায় এই রাজ্য থেকে বড়জোর তিন–‌চারটি আসন পেতে পারে বিজেপি। তার বেশি সম্ভব নয়। ফলে, বিধানসভাতেও বিরাট কোনও ম্যাজিক দেখানো সম্ভব নয়। তাহলে তাঁরা কেন ঝুঁকি নিতে যাবেন?‌
অমিত শাহ যা বোঝার, বুঝে গেছেন। বাংলার বিজেপি নেতৃত্ব বাস্তবটা হয়ত সেভাবে বোঝেননি। তাই অমিত শাহকে বিড়ম্বনায় ফেললেন। এখন প্রধানমন্ত্রীর ডাক এসেছে বলে আড়াল করতে হচ্ছে। অমিত শাহ সভায় কী বললেন, কার বাড়িতে খেলেন, কাগজে যতই এসব ছবি বেরোক, ব্যবসায়ীদের প্রত্যাখ্যানটাই হল এবারের সফরের নির্যাস। এই সহজ সত্যিটা রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব যদি বুঝতেন!‌

amazon-strip

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen − 3 =

You might also like...

radio3

না বোঝা সেই মহালয়া

Read More →
game of thrones season 7 episode 1 game of thrones season 7 watch online game of thrones season 7 live streaming game of thrones season 7 episode 1 voot voot apk uc news vidmate download flipkart flipkart flipkart apk cartoon hd cartoonhd cartoon hd apk cartoon hd download 9Apps 9Apps apk